ব্রেকিং নিউজ অবশেষে নিবার্চনে যেতে তারেক জিয়ার ছয় দফা!

বিএনপি আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শরিকদের জন্য ৫০ আসন ছেড়ে দেবে। নির্বাচনে বিএনপি ২০ দলীয় জোট এবং জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট উভয়কে একসঙ্গে নিয়েই নির্বাচন করবে। ২০ দলীয় জোটকে ৩০ টি এবং জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে ২০ টি আসন দেওয়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেছে বিএনপি। বিএনপির দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া, ঐক্যের আসন ভাগাভাগি এবং ক্ষমতার ভারসাম্য প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে তাঁর লিখিত মতামত দিয়েছেন। আজ ২০ দলের বৈঠকে এই প্রস্তাব নিয়ে সমালোচনা হবে। তারেক জিয়া নির্বাচন এবং নির্বাচন পরবর্তী সরকার গঠন নিয়ে যে প্রস্তাবনা পাঠিয়েছেন তার মূল বিষয়বস্তু এরকম:

১. বিএনপি ২০ দল এবং জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে একসঙ্গে নিয়ে নির্বাচন করবে। ২০ দলের শরিকরা পাবেন ৩০ টি আসন। তবে তাদের সবাইকে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করতে হবে। আর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে ছেড়ে দেওয়া হবে ২০টি আসন। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা চাইলে ধানের শীষ অথবা তাদের দলীয় প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। দলীয় প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করলেও ঐ আসনে ধানের শীষের কোনো প্রার্থী থাকবে না।

২. নির্বাচনে যাওয়ার ক্ষেত্রে যে যুক্তি দাঁড় করানো হবে তা হলো গণতন্ত্র এবং গণতন্ত্রের মায়ের মুক্তি। তারেক জিয়া এই অভিন্ন শ্লোগানে ঐক্যবদ্ধ নির্বাচনের প্রস্তাবনা দিয়েছেন। তাঁর প্রস্তাব অনুযায়ী, কোনো দাবি সরকার না মানার পরও আন্দোলনের অংশ হিসেবেই এই নির্বাচন। গণতন্ত্রকে মুক্ত করতে এবং খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতেই এই নির্বাচন বলে তারেক প্রস্তাব রেখেছেন।

৩. নির্বাচনের পর বিএনপি একক বা নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলেও প্রধানমন্ত্রী পদ বিএনপি নেবে না। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট বা সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য কাউকে প্রধানমন্ত্রী করা হবে।

৪. নির্বাচনে জয়ী হলে এবং দুই-তৃতীয়াংশের বেশি আসন পেলে; জোট সরকার বর্তমান সংবিধান বাতিল করে, সকল দলের মতামতের ভিত্তিতে নতুন সংবিধান প্রণয়ন করতে হবে।

৫. নতুন সংবিধানে রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতার ভারসাম্য প্রতিষ্ঠা করা হবে।

৬. বিএনপি এবং জোট ক্ষমতায় গেলে, কোনো প্রতিহিংসার নীতি ও কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে না।

এই ৬ দফার ভিত্তিতে নির্বাচনে যাওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন তারেক জিয়া। একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে, তারেক জিয়ার এই প্রস্তাবের ব্যাপারে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট রাজি হয়েছে। ২০ দলের বৈঠকে এই প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা হবে।

উৎসঃ বাংলা ইনসাইডার