ইরানে মাটির নিচে গড়েছে ক্ষেপণাস্ত্র নির্মাণের শহর

ইরান এই প্রথম ভূগর্ভস্থ ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নির্মাণের একটি শহরের কথা প্রকাশ করেছে। পাশাপাশি ভূমি থেকে ভূমিতে আঘাত হানার উপযোগী চৌকস ক্ষেপণাস্ত্র দেজফুলও উন্মোচন করেছে ইরান। ইসলামী বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি অ্যারোস্পেস বা বিমানমহাকাশ ডিভিশনের জন্য ভূগর্ভস্থ কারখানায় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করা হয়। এ ক্ষেপণাস্ত্রের সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যে আঘাত হানার সক্ষমতা রয়েছে।

বৃহস্পতিবার এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ভূগর্ভস্থ এ শহরের কথা প্রকাশ করেন আইআরজিসির প্রধান কমান্ডার মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আলি জাফরি। তিনি বলেন, ভূগর্ভের অনেক গভীরে অবস্থিত ক্ষেপণাস্ত্র নির্মাণ শহরের কথা প্রকাশের মধ্য দিয়ে পশ্চিমা এক শ্রেণীর জনগোষ্ঠীর বোকামিসুলভ কথাবার্তার জবাব দেওয়া হলো। এসব ব্যক্তি মনে করছেন, বাধা নিষেধ আরোপ করে বা হুমকি দিয়ে ইরানকে তার দূরবর্তী লক্ষ্য অর্জন থেকে বিরত রাখতে পারবেন।

তিনি আরো বলেন, ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষাব্যবস্থা দেশটির প্রতিরক্ষা নীতির অংশ এবং এ নিয়ে কোনো আলোচনা চলতে পারে না। ইরান পুরোপুরি প্রতিরক্ষা সক্ষমতা অর্জন করেছে বলেও ইসলামি বিপ্লবের বিজয়ের ৪০তম বার্ষিকীর আগেভাগে ঘোষণা দেন তিনি। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন আইআরজিসি’র বিমান মহাকাশ ডিভিশনের কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আমির আলি হাজিজাদেহ। তিনি বলেন, সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যে আঘাত হানার উপযোগী অত্যাধুনিক এবং চৌকস ক্ষেপণাস্ত্রের গণ-উৎপাদন এখন আইআরজিসি’র বিমানমহাকাশ বাহিনীর জন্য একটি বাস্তব বিষয়ে হয়ে উঠেছে।

দেজফুল ক্ষেপণাস্ত্রের বৈশিষ্ট্যও তুলে ধরেন তিনি। পাশাপাশি জুলফিকার ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নির্মাণের সফলতার সঙ্গে একে তুলনা করেন। ২০১৬ সালে জুলফিকারের গণ-উৎপাদন শুরু করেছে ইরান। তিনি জানান, দেজফুলের পাল্লা হলো এক হাজার কিলোমিটার এবং এটি জুলফিকারের চেয়ে ৩০০ কিলোমিটার বেশি। দেজফুলের ওয়ারহেড বা বোমায় বিশেষ উপাদান ব্যবহার করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এতে দেজফুলের ধ্বংস ক্ষমতা জুলফিকারের চেয়েও দ্বিগুণ হয়েছে।