বুলবুলের নারী কেলেঙ্কারি: ভাট্টি-মুন্নী সাহারা চুপ কেন?

নারীকর্মীদের ওপর যৌন নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনায় একুশে টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী ও আওয়ামীপন্থী সাংবাদিক নেতা মঞ্জুরুল আহসান বুলবুলের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবিতে সাংবাদিকদের প্রতিবাদ বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। রোববার সকালেও জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে নারী সাংবাদিকরা মানববন্ধন করেছে। একুশে টিভিতে কর্মরত নির্যাতনের শিকার নারীকর্মীরাও মানববন্ধনে বুলবুলের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

এদিকে, নারীকর্মীদের ওপর যৌন নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনায় বুলবুলের বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফুঁসে উঠছে গোটা সাংবাদিক সমাজ। সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠনগুলোও বুলবুলের এ ঘটনায় চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। সাংবাদিক ছাড়া বিভিন্ন মহল থেকেও বুলবুল এবং তার সহযোগিদের শাস্তির দাবি উঠেছে। সরকারের ঘনিষ্ঠ হওয়ায় বুলবুলের নারী নির্যাতনের ঘটনায় রাজনৈতিক অঙ্গনেও এনিয়ে চলছে সমালোচনা।

কিন্তু লক্ষণীয় বিষয় হলো, টেলিভিশনের পর্দায় বসে যারা দিন রাত ২৪ ঘণ্টায় নারীদের অধিকার নিয়ে চেঁচামেচি করেন সেই কথিত সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টি ও মুন্নী সাহাকে একুশে টিভির নারীকর্মীদের ওপর যৌন নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনায় কোনো কথা বলতে শুনা যাচ্ছে না। বুলবুল গংদের শাস্তির দাবিতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে প্রায় নিয়মিতই মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করছেন নারী সাংবাদিকরা। কিন্তু মাসুদা ভাট্টি ও মুন্নী সাহাকে একদিনও দেখা যায়নি। এমনকি কোনো টকশোতেও এনিয়ে কোনো কথা বলছেন না কথিত এই দুই নারী সাংবাদিক।

অথচ, ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন মাসুদা ভাট্টিকে চরিত্রহীন বলার প্রতিবাদে দলবল নিয়ে মাঠে নেমেছিল মুন্নী সাহারা। তাদের ভাষায়-মইনুল হোসেন নাকি মাসুদা ভাট্টিকে চরিত্রহীন বলে তাদের ইজ্জত একেবারে শেষ করে দিয়েছিলেন। এখন তাদের জাত ভাই মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল ও তার সহযোগিরা নারীকর্মীদেরকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করলেও সম্মান নষ্ট হয় না।

মাসুদা ভাট্টি ও মুন্নী সাহার নীরবতা নিয়ে শুধু সাংবাদিক সমাজ নয়, রাজনৈতিক মহলেও চলছে ব্যাপক সমালোচনা। সবার প্রশ্ন একটাই-এত বড় ঘটনার পরও মাসুদা ভাট্টি ও মুন্নী সাহা এখন চুপ কেন? বুলবুলের বিরুদ্ধে তারা মুখ খুলছেন না কেন? বুলবুলের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক কি? অভিযোগ রয়েছে, বুলবুল এটিএন বাংলায় থাকাকালীন মুন্নী সাহার সঙ্গে দহরম মহরম সম্পর্ক ছিল।

সূত্রঃ অ্যানালাইসিস বিডি